1. admin@aparadhatallasi.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০৫:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কাপাসিয়ায় পাট চাষীদের প্রশিক্ষণ অভয়নগরে পরিচ্ছন্নতাকর্মী পদে ভূয়া সনদে চাকরি করার অভিযোগ রংপুরে দুলা ভাইয়ের হাতে শ্যালক খুন নীলফামারীতে যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার ভালুকায় ভরাডোবা উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ তেলিহাটি ইউনিয়নে রাস্তার শুভ উদ্বোধন করেন গনশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী রুমানা আলী টুসি এমপি কাপাসিয়া রামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনায় কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত কাপাসিয়ায় মাসিক যৌথ সভা ও ই-প্রশিক্ষণ কোর্স অনুষ্ঠিত স্কুল ঝড়েপড়া শিক্ষার্থীদের আটকাতে হবে “প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক রুমানা আলী টুসি “ কাপাসিয়ার মেয়ে সাইয়ারা কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতায় জাতীয় পর্যায়ে দ্বিতীয়

পুলিশের সাথে মাদক ব্যবসায়ীদের সখ্যতায় গড়ে উঠেছে মাদকের রাজ্য

  • আপডেট সময় : সোমবার, ৭ আগস্ট, ২০২৩
  • ৫৪ বার পঠিত

ইশতিয়াক আহম্মেদ,কুষ্টিয়া প্রতিনিধিঃ

কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলা ভারতীয় সিমান্ত লাগোয়া হাওয়ায় এখানে মাদক,অস্ত্র ও চোরাকারবারি বেশি। উপজেলার তেকালা ও ধর্মদহ গ্রাম দুটি সীমান্ত ঘেঁষা হওয়ার কারনে মাদক, অস্ত্র ও চোরাকারবারিদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ রুট। তেকালা ও ধর্মদহ এলাকাতেই রয়েছে উপজেলার শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীদের বাড়ি।
এজন্য উপজেলার মাদক ও অবৈধ অস্ত্র ব্যবসা নিয়ন্ত্র ও আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সাভাবিক রাখতে সরকার তেকালাতে একটি পুলিশ ক্যাম্প স্থাপন করে। এই ক্যাম্পের বর্তমান ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক আব্দুর রহমান যোগদানের পর থেকে মাদক উদ্ধার শূন্যতে নেমে এসেছে। অথচ একই রুটে বিভিন্ন সময় মাদ, অস্ত্র, স্বর্ণ দৌলতপুর থানা পুলিশ, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ ও জেলা গোয়েন্দা শাখা উদ্ধার হচ্ছে কোটি কোটি টাকার মাদক । ২০১৬ সালের মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে সখ্যতা গড়েতুলার কারণে এই ক্যাম্প থেকে ক্লোজ হয়েছিলেন উপ-পরিদর্শক আব্দুর রহমান।

এলাকাবাসীর অভিযোগ পূর্বে এই ক্যাম্পে থাকার সময় অপকর্মের দায়ে ক্লোজ হয়েছিলেন,তখন মাদক ব্যবসা অনেকখানি নিয়ন্ত্রণে ছিল। আবারও এই ক্যাম্পে যোগদানের পর থেকে মাদক ও চোরাকারবারিদের সাথে সখ্যতার গড়ে তুলেছে আব্দুর রহমান”আর এর নেপথ্যে আছে তথাকথিত এক সাংবাদিক। মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে সখ্যতার কারনে যোগদানের দুই মাসে মাদকের মামলা দিয়েছে মাত্র দুইটা । এই সিমান্ত এলাকায় ক্যাম্প পুলিশের কোন অভিযান নেই।

মাদক ব্যবসায়ীদের, মাদক বহনকারী লেবারদের দেওয়া তথ্যমতে, এই তেকালা সিমান্ত দিয়ে প্রতি মাসে বাংলাদেশে প্রবেশ করে কয়েক কোটি টাকার মাদক। পরেতা নানা কৌশলে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে পৌঁছে যায় এই মাদক বহনকারীরা

তেকালা পুলিশ ক্যাম্পের আওতায় শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীর তালিকায় রয়েছে, বকুল, লালন, লালু, আলতাব, লিটন, ফারুক, রাজু, মন্টু, তালেব, ছোট বাবু, রবিউল, ইমন, দাদুল সহ আরো অনেকে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি বলেন, ক্যাম্প ইনচার্জ আব্দুর রহমান তেকালা পুলিশ ক্যাম্পে যোগদানের পর থেকে তার নিয়ন্ত্রণে চলছে মাদক ব্যবসা। প্রতিদিন সন্ধ্যা নামলে আব্দুর রহমান স্থানীয় এক কথিত সাংবাদিককে সাথে নিয়ে মাদকের টাকা তোলায় ব্যস্ত হয়ে পড়েন। যে ভাবে মাদক ব্যবসা হচ্ছে তা দেখে আমরা আতঙ্কিত, কখন না জানি আমার সন্তানটাও মাদক ব্যবসায় বা মাদক সেবনে জড়িয়ে পড়ে। তাই এখানে মাদক নিয়ন্ত্রণের জন্য ভালো সৎ ও আদর্শবান একজন পুলিশ অফিসার প্রয়োজন।

এ বিষয়ে আদাবাড়ীয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান মকবুল হোসেন বলেন, এসআই আব্দুর রহমান যোগদানের পরে সাধারণ সেবা প্রার্থীর ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে সখ্যতা গড়ে তোলার কারনে মাদক তেমন উদ্ধার নাই। উপজেলার ধর্মদহ সীমান্ত ছাড়া বর্তমানে অন্য কোন সিমান্ত দিয়ে মাদক বাংলাদেশ আসেনা বললেই চলে। তাই মানুষ ও দেশ বাঁচাতে এখনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩ দৈনিক অপরাধ তল্লাশি

Theme Customized By Shakil IT Park