1. admin@aparadhatallasi.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১২:২১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
পীরগাছায় মাদ্রাসার ছাত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার ফরিদপুরে নগরকান্দা উপজেলার ফুলসুতি ইউনিয়ন পরিষদের উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণা ওবায়দুল কাদেরের ভাইসহ দুই প্রার্থীর ভোট বর্জন সাতকানিয়ায় ১৭ টাকা পাওনাকে কেন্দ্র করে ছু রিকাঘা তে যুবককে হ ত্যা রংপুর বিভাগের ১৯ উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠিত রানীশংকৈলে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহের সমাপনি অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত ৫৩বছর বছর ধরে ঘাস বেচেই সংসার চলে ভূমিহীন অমলের ফুলবাড়ীতে ই‌রি-বোরো ধান সংগ্রহে উন্মুক্ত লটারি পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে ফার্মেসীতে ফেনসিডিল সেবনের সময় পুলিশের হাতে আটক দুই ফুলবাড়ীতে রেমালের প্রভাব: পাকা ধান নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষক

ফরিদপুরের ভাঙ্গায় পল্লী চিকিৎসক ডাক্তারের ভুমিকায়,ফার্মেসী দিয়ে NS স্যালাইন চড়া দামে বিক্রির অভিযোগ

  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২৩
  • ৫১ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টারঃ

ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার পুখুরিয়া বাসস্ট্যান্ডে পল্লী চিকিৎসক রতন চন্দ্র দাস ডাক্তারেরর ভুমিকায় চিকিৎসার পাশাপাশি ফার্মেসী ( ঔষধ) দোকান দিয়ে চড়া দাম নিয়ে ঔষধ বিক্রি করেন বলে একাধিক ক্রেতারা জানান।
ফরিদপুর – ভাঙ্গা মহা সড়কের পাশে পুখুরিয়া বাসস্ট্যান্ডে প্রায় ১ যুগ ধরে নিজে মানুষের চিকিৎসার পাশাপাশি ঔষধের দোকার (ফার্মেন্সী) দিয়ে মানুষ ও গরু- ছাগলের ঔষধ বিক্রি করে আসচ্ছে।
ঔষধ কিনতে আসা লোকেরা পল্লী চিকিৎসক রতন চন্দ্র দাসের জিম্মি দশায় পড়ে বাধ্য হচ্ছে চড়া দামে ঔষধ কিনতে।
সোমবার সকালে ঔষধ কিনতে
স্হানীয় নজরুল নামে এক ব্যাক্তি
তার দোকানে NS স্যালাইন এক হাজার মিলি, ৮৭ টাকা মুল্য হলেও বাধ্য হয়ে ৩০০ টাকায় কিনে নেয়।

ডাক্তার পরিচয়কারী রতন চন্দ্র দাস অসুস্থ রোগীদের বিপাকে ফেলে NS স্যালাইন ও এছ এল ফার্মাসিটি লিমিটেড কোম্পানি ১০০০ মিলি স্যালাইন গায়ে মূল্য ৮৭ টাকা হলেও সে বিক্রি করছে ৩০০ টাকায।

সংবাদকর্মীরা চড়া দামে ঔষধ বিক্রি করার অভিযোগ পেয়ে সরেজমিনে গিয়ে ডাক্তার রতন চন্দ্র দাস কে ৮৭ টাকা মূল্য স্যালাইন ৩শ’ থেকে ৫ শ’ টাকা ক্রেতাদের কাছ থেকে কেন নিচ্ছেন জবাবে তিনি বলেন ঠিক আছে আমি ৫০০থেকে এক হাজার টাকা বিক্রি করব তাতে আপনাদের কি সমস্যা নিউজ করলে করতে পারেন আমার কোন সমস্যা নেই।ঔষধের দোকানের কোন ট্রেড লাইসেন্স, ড্রাগ লাইসেন্স, ডাক্তারী কোন সাটিফিকেট আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি কোন জবাব না দিয়ে কাজ আছে বলে দোকানের ঝাপ ফেলে চলে যায়।

এবিষয় ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্মকর্তা তরুন কুমার দাস বলেন, ঔষধ বেশি দামে বিক্রি করা ও কোন বৈধ কাগজপত্র না থাকলে তদন্ত সাপেক্ষ তার বিরুদ্ধে আইগত ব্যবস্হা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩ দৈনিক অপরাধ তল্লাশি

Theme Customized By Shakil IT Park