1. admin@aparadhatallasi.com : admin :
রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ০৫:২৭ অপরাহ্ন

পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে গিয়ে ভূমি অফিসের কর্মচারীকে বেধড়ক মারধর

  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারি, ২০২৪
  • ৯২ বার পঠিত

দেবীগঞ্জ (পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ

পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে সড়কের পাশের খাস জমিতে রাতের বেলা নির্মিত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে গিয়ে বেধড়ক মারধরের শিকার হয়েছেন ভূমি অফিসের কর্মচারী আপন ইসলাম। তিনি উপজেলা ভূমি অফিসে গাড়ি চালক হিসেবে কর্মরত আছেন।

ভুক্তভোগী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রবিবার দিবাগত রাতে দেবীগঞ্জ পৌর শহরের চৌরাস্তা-সোনাহার সড়কের মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনের বিপরীত দিকে সড়কের পাশের খাস জমিতে দোকানঘর নির্মাণ করা হয় এবং আরো দোকানঘর নির্মাণের জন্য পিলার পুঁতে রাখা হয়। বিষয়টি সোমবার জানাজানি হলে এসি ল্যাণ্ড অফিসের অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা ইউএনও শরীফুল আলমের নির্দেশে সদর ভূমি অফিসের তহশিলদার মুক্তার হোসেনসহ ভূমি অফিসে কর্মরত ১২ জনের একটি দল স্থাপনা উচ্ছেদের জন্য যায়। ঘটনাস্থলে যাওয়ার পর স্থাপনা উচ্ছেদে তাদের বাধা দেওয়া হয়। এই সময় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে বাধা দিতে প্রায় দেড়শর অধিক ব্যক্তি জড়ো হন। পরে এসি ল্যাণ্ড অফিসের কর্মচারীদের সাথে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে গাড়ি চালক আপন ইসলামকে শাবল দিয়ে মারতে আসেন বেশ কয়েকজন। এইসময় অফিসের অন্যান্য কর্মচারীদের মধ্যস্থতায় পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়। পরে আপন পাশেই মিন্টুর দোকানে ফ্লেক্সিলোড নিতে গেলে সেখানে তার উপর দ্বিতীয়বার হামলা চালানো হয়।

ভুক্তভোগী আপন ইসলাম বলেন, আমরা ঘটনাস্থলে যাওয়ার পর ‘এটা কি ইউএনও’র বাবার জমি, বেটারা বাড়ে গেছে’ এমনটা শোনার পর আমি সামনে এগিয়ে গিয়ে এর প্রতিবাদ করি। তখন তারা আমাকে শাবল দিয়ে হামলা করতে আসলে অন্যান্যদের মধ্যস্থতায় পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়। পরে পাশেই এক ফ্লেক্সিলোড দোকানে গিয়ে ফ্লেক্সিলোড দেওয়ার সময় হুট করে এসে চেয়ার দিয়ে আমার উপর হামলে করে। এইসময় আত্মরক্ষার্থে আমি চেয়ার ধরতে গেলে সবাই মিলে আমাকে মারধর করে।

অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা-কর্মীরা হামলায় অংশ নেন।

ইউএনও শরীফুল আলম বলেন, খাস জমিতে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের খবর পেয়ে তা উচ্ছেদে সেখানে তহশিলদারকে পাঠানো হয়েছিল। তাদের সরকারি কাজে বাধা দেওয়া হয়েছে বলে শুনেছি। এই ব্যাপারে থানায় এজাহার জমা দেওয়া হয়েছে।

পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসক জহুরুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমরা জানি। এই ব্যাপারে আইনী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, দেবীগঞ্জ থানা এবং দেবীগঞ্জ সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের পাশে ঘটনাস্থল হলেও দীর্ঘদিন থেকে খাস জমিতে একের পর এক দোকানপাট নির্মাণ হয়ে আসলেও পুলিশ কখনই আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩ দৈনিক অপরাধ তল্লাশি

Theme Customized By Shakil IT Park